“নিপ্পন ব্যাংক কেস” [ কেস নম্বর – ২৭ ]

 “নিপ্পন ব্যাংক কেস” [ কেস নম্বর – ২৭ ]

 “নিপ্পন ব্যাংক কেস” [ কেস নম্বর – ২৭ ]

নিপ্পন ব্যাংক কেস

নিপ্পন ব্যাংক ১৯৯৭ সালের জানুয়ারী মাসে একজন আমদানীকারকের পক্ষে স্পেন হতে টাইলস আমদানীর লক্ষ্যে ১০ হাজার মার্কিন ডলার সমমূল্যের একটি L/C খুললো। যথারীতি সমমূল্যের অর্থের প্রয়োজনীয় শিপিং ডকুমেন্টস্ ব্যাংকের নিকট পৌছে বহু আমদানীকারক যথানিয়মে উক্ত ডকুমেন্টস্ রিটায়ার করে। এর কিছুদিন পর, অর্থাৎ ১৯৯৭ সালের এপ্রিল মাসে লেখা তা একই নেগোশিয়েটিং ব্যাংক হতে উক্ত নিয়ন ব্যাংকের বরাবরে আরও ১০ হাজার মার্কিন ডলারের সমমূল্যের অরিজিনাল শিপিং ডকুমেন্টস্ এসে পৌঁছে। পরবর্তীতে অনুসন্ধান করে দেখা গেল যে, একই L/C-র অধীনে ২ বার উক্ত পণ্যের চালান পাঠানো হয়।

i) এখন যদি উক্ত আমদানীকারক ঐ ডকুমেন্টস্ গ্রহন করতে চায় তাহলে কিভাবে লেনদেনটি নিষ্পত্তি করা যাবে বলে আপনি মন করেন।

ii) আর যদি উক্ত আমদানীকারক এই ডকুমেন্টস্ গ্রহণ করতে না চায় এবং রপ্তানীকারকের পক্ষে উক্ত নেগোশিয়েটিং ব্যাংক যদি ওপেনি ব্যাংককে এই মর্মে অনুরোধ জানায় যে, যে পর্যন্ত চূড়ান্ত নিষ্পত্তি না হয় সে পর্যন্ত উক্ত পণ্য ওপেনিং ব্যাংক-এর জিম্মায় রাখা হউক- তাহলে ব্যাংকের কি পদক্ষেপ নেওয়া উচিত হবে?

“মার্চেন্ট ব্যাংক কেস” [ কেস নম্বর ২৮  ]

মার্চেন্ট ব্যাংক লিঃ হংকং থেকে ষ্টেশনারী দ্রব্যাদি আমদানীর জন্য একজন আমদানীকারকের পক্ষে ১০০% মার্জিনে ৫ হাজার মার্কিন ডলার সমমূল্যের একটি বাণিজ্যিক প্রত্যয়পত্র খোলে। উক্ত LAC-র মাধ্যমে আংশিক পণ্যের চালান ব্যাংক অনুমোদন করে। পণ্যের চালান যথাসময়ে বন্দরে এসে পৌঁছালে আমদানীকারক আড়াই হাজার মার্কিন ডলারের সমমূল্যের ডকুমেন্টস-এর বিপরীতে শিপিং গ্যারান্টি ইসু করার জন্য ব্যাংককে অনুরোধ জানায়। ব্যাংক উক্ত অনুরোধ মোতাবেক আংশিক পণ্ডের চালান খালাসের জন্য শিপি গ্যারান্টি ইস্যু করে। কিন্তু প্রকৃত জাহাজী কাগজপত্র হাতে পাওয়ার পর দেখা গেল যে কোন আংশিক শিপমেন্ট কার্যকরী হয় নাই এবং ও হাজার মার্কিন ডলার সমমূল্যের ডকুমেন্টসই নেগোশিয়েট করা হয়েছিল।

এখন কিভাবে ব্যাংকের হিসাবপত্র Bill of Entry-র সাথে সামজস্য রেখে সমন্বয় করা যায় এ ব্যাপারে আলোকপাত করুন।

নিপ্পন ব্যাংক কেস

“সিমি ব্যাংক কেস” [ কেস নম্বর – ২৯  ]

সিমি ব্যাংকের একজন আমদানীকারকের অনুকূলে পাকিস্তান থেকে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানীর জন্য একটি LC অনুমোদন করলো। উক্ত একটি LIC টি অনুমোদন করার সময় একই ব্যাংকের একজন মূল্যবান ও বিশ্বস্ত মঞ্চেল উক্ত আমদানীকারকের পক্ষে ব্যাংকে এই মর্মে আশ্বস্ত করে যে, যদি কোন কারণে উক্ত আমদানীকারক যথাসমগ্রে শিপিং ডকুমেন্টস্ নিষ্পত্তি করতে বর্ণ হয় তাহলে ঐ মে আমদানীকারকের সমস্ত দায়ভার গ্রহন করবে এবং ব্যাংক তখন উক্ত ব্যাংকে রক্ষিত বা মক্কেলের হিসাবের বিপরীতে সমস্ত ক্ষতি সমন্বয় করবে।

পরবর্তীতে দেখা গেল, যথাসময়ে আমলানকৃত পণ্য খালাসে আমদানীকারক বর্ম হয় এবং তাকে উক্ত গ্যারান্টির ক্ষমতা বলে মরেলের হিসাব খাতের বিপরীতে এইদায় সমন্বয় করে। ইতঃমধ্যে কাকে উপরোক্ত আমদানীকারকের ঠিকানায় যোগাযোগ করে তার কোন হদিস বা খুঁজে পাওয়া যায় নি। তখন উক্ত মক্কেল (গ্যারান্টার) ব্যাংককে অনুরোধ করে যাতে তার নিকট ঐ শিপিং ডকুমেন্টস হস্তান্তর করা হয়। ব্যাংক তারই AVC এর বিপরীতে সমস্ত দায় সমন্বয় করেছিল। এখন কিভাবে উক্ত ডকুমেন্টস্ ঐ গ্যারান্টারের নিকট হস্তান্তর করা যায় ?

“সাগু বীজ কেস” [ কেস নম্বর ৩০  ]

বাংলাদেশের একজন আমদানীকারক মালয়েশিয়ার একজন রপ্তানীকারকের নকিট হতে সাদা সাপ্ত বীজ আমদানীর লক্ষ্যে Social Bank আগ্রাবাদ শাখায় ১০ হাজার ইউ. এস. ডলার সমমূল্যের একটি বাণিজ্যিক LC খোলে। এর প্রায় এক-দেড় মাস পর আমদানীকারক Advising Bank কে এই মর্মে অনুরোধ করার জন্য তার ব্যাংককে নির্দেশ দেয় যে, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত যাতে পশু জাহাজীকরণ না করা হয়।

নিপ্পন ব্যাংক কেস

কিন্তু এই অনুরোধ Advising Bank প্রত্যাখ্যান করে। আমদানীকারকের ব্যাংক পরে এই ক্ষণের শর্তের কিছুটা। সংশোধন করে পণ্য জাহাজীকরণের পূর্বে পরিদর্শনের ( Inspection) শর্ত আরোপ করে। Advising Bank তখন এই শর্তের কথা Beneficiary (পণ্যের রপ্তানীকারক) কে জানায়, কিন্তু রপ্তানীকারক এ ব্যাপারে কর্ণপাত না করে যথাসময়ে পূর্বের শর্ত মোতাবেক পড়ের জাহাজীকরণ করে দেয়।

নেগোশিয়েটিং ব্যাংক যথানিয়মে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস্ নেগোশিয়েট করে। কিন্তু বন্দর পরিদর্শন করে দেখা তোল যে, সাদা সাগু বীজের পরিবর্তে লাল সাগু বীজের চালান এসেছে। Opening Bank তখন পরিশোধকারী ব্যাংককে এই মর্মে সতর্কবাণী প্রদান করে যাতে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত দাবীর নিষ্পত্তি না করা হয়। এখন ঘটনাটি বিভাবে নিষ্পত্তি করা যায় এ ব্যাপারে আপনার মতামত প্রদান করুন।

আরও পড়ুনঃ

মন্তব্য করুন