পরিচালকদের স্থায়ী কমিটি সমূহ [ Standing Committees of the Board of Directors ]

পরিচালকদের স্থায়ী কমিটি সমূহ [ Standing Committees of the Board of Directors ]: ব্যাংকের প্রধান কর্মকর্তাদের নির্বাচন ও নিয়োগ দান করে ব্যাংক কার্যক্রমে পরিচালনা পর্ষদ প্রত্যক্ষ ভাবে অবদান রাখে। কিন্তু বিশেষ বিশেষ কার্যাদী সম্পাদনের জন্য স্থায়ী কমিটির মাধ্যমে পরিচালকবৃন্দ ব্যাংকের উচ্চতর কর্মকর্তাদেরকে সহায়তা করে পরোক্ষভাবে ব্যাংক ব্যবস্থাপনায় অংশগ্রহণ করে থাকে। পরিচালকবৃন্দ প্রায়শই অন্য ব্যবসায় ব্যস্ত থাকেন বিধায় ব্যাংকে অনেক সময় দিতে পারেন না। এতগভিন্ন, ব্যাংক ব্যবস্থাপনায় অনেক সময়ই বিভিন্ন বিষয়ে অভিজ্ঞ ব্যক্তিবর্গ একসাথে বসে সিদ্ধান্ত নিলে অপেক্ষাকৃত নির্ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব।

পরিচালকদের স্থায়ী কমিটি সমূহ [ Standing Committees of the Board of Directors ]

কমিটির সিদ্ধান্ত একক কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের চেয়ে অপেক্ষাকৃত নির্ভুল হবে এই ধারণা ইংরেজী ভাষায় একটি প্রবাদ থেকে বলা যায় Two heads are better than one অর্থাৎ একজন সিদ্ধান্ত নিলে ভুল হওয়ার সম্ভাবনা যতটুকু দুই জন মিলে সিদ্ধান্ত নিলে ভুল হওয়ার সম্ভাবনা কম। তবে কমিটির মাধ্যমে আত সিদ্ধান্ত গ্রহণ কমই হয় যা এক ব্যক্তির দ্বারা চট করে নেওয়া সম্ভব। কমিটি ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ত্রুটিযুক্ত একথা বলা যাবে না। তবে ইহা অবশ্যই এক ব্যক্তির দ্বারা গৃহীত শ্বৈর সিদ্ধান্তের চেয়ে অপেক্ষাকৃত অনেক গণতান্ত্রিক এবং এই কমিটির মাধ্যমেই পরিচালকবৃন্দ ব্যাংক ব্যবস্থাপনায় অংশগ্রহণ করে থাকেন।

 

পরিচালকদের স্থায়ী কমিটি সমূহ [ Standing Committees of the Board of Directors ]

প্রায়শঃ একই রূপ সিদ্ধান্ত নিতে হয় এরূপ ব্যাপারে পর্যালোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য কতকগুলি স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়ে থাকে। কিন্তু সচরাচর সিদ্ধান্ত নিতে হয় না এমন এমন বিষয়ে কোন কোন সময়ে এককালীন কমিটি গঠন করা হয়ে থাকে। এককালীন কমিটি সাধারণত বিশেষ ব্যাপার সম্পর্কে পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার পরই বিলুপ্ত হয়। কিন্তু স্থায়ী কমিটি গুলোর একইরূপ নতুন নতুন ব্যাপারে পর্যালোচনা করতে হয় বিধায় এদের সহসাই বিলোপ করা হয় না।

 

পরিচালকদের স্থায়ী কমিটি সমূহ
[ Standing Committees of the Board of Directors ]

কমিটির সদস্য [ Members of the Committee ]:

কমিটি গঠন কতজন সদস্য নিয়ে হবে এ ব্যাপারে কোন ধরাবাঁধা নিয়ম নেই। বোর্ড মিটিং এ বসে পরিচালক বৃন্দ কমিটির সংখ্যা নাম এবং সদস্য সংখ্যা নির্ধারণ করে থাকেন। সব কমিটি সদস্য সংখ্যা সমান হবে এমনটি বলা যায় না। তবে সদস্য গণকে আবর্তন ক্রমে (Rotation) বেশী সংখ্যক কমিটিতে সদস্য করা হয়ে থাকে। কোন কোন সময় কার্যভিত্তিক বিশেষজ্ঞ বা অভিজ্ঞ কর্মকর্তাদের কে কমিটির পূর্ণ সদস্য অথবা পর্যবেক্ষক হিসাবে নেওয়া হয়ে থাকে। পরিচালক বহির্ভূত এই রাপ সদস্যদের বিশেষ জ্ঞান বা অভিজ্ঞতার আলোকে অপেক্ষাকৃত নির্ভুল হওয়া সম্ভব।

 

স্থায়ী কমিটির প্রকারভেদ [ Types of Standing Committees ]:

ব্যাংকের আকারভেদে বা পরিচালকদের সংখ্যার ভিত্তিতে বা সিদ্ধান্ত গ্রহণের জটিলতা বিবেচনা করে স্থায়ী কমিটির সংখ্যা কম বেশী হতে পারে। নিম্নে একটি মাঝারী আকারের বাণিজ্যিক ব্যাংকের বহুল ব্যবহৃত স্থায়ী কমিটি সমূহের নাম নিয়ে দেয়া হল।

১. কার্যনির্বাহী কমিটি  [ Executive Committee ]

২. ঋণ কমিটি  [ Loan Committee ]

৩. বিনিয়োগ কমিটি [ Investment Committee ]

৪. বেতন ও বাহিনী সম্পর্ক কমিটি [ Salary and Employee Relations Committee ]

৫. পরীক্ষা কমিটি ও নিরীক্ষা কমিটি  [ Examining Committee and Audit Committee ]

৬. ব্যবস্থাপনা মূল্যায়ন কমিটি [ Management Evaluation Committee ]

৭. ওছি কমিটি [ Trust Committee ]

৮. বাট্টা কমিটি [ Discount Committee ]

৯. ব্যবসায় উন্নয়ন কমিটি [ Business Development Committee ]

স্থায়ী কমিটি
স্থায়ী কমিটি

১. কার্যনির্বাহী কমিটি [ Executive Committee ]:

কোম্পানীর পরিমেল বিধি (by Laws) বলে এরপ কমিটি ক্ষমতাপ্রাপ্ত হয়ে থাকে। কার্যনির্বাহী কমিটি পর্যদের পক্ষে সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে। এক পর্ষদ সভার পর আর এক পর্ষদ সভা ডাকার পূর্বে জরুরী বিষয়ে পর্যদের পক্ষে এ কমিটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকে। কার্যকরী কমিটি কর্তৃক সিদ্ধান্ত সমূহ পরবর্তী পর্ষদ সভায় অনুমোদন করে নিতে হয়। উল্লেখ্য যে, কার্যকরী কমিটি লভ্যাংশ ঘোষণা, পরিমেল বিধি বা অন্য কোন বিধি, বা অন্য কোন সামগ্রিক আইন পরিবর্তনের এখতিয়ার রাখে না।

২. ঋণ কমিটি [ Loan Committee ]:

ঋণ কমিটি পর্যদের পক্ষে একটি নির্দিষ্ট স্তরের ঋণের আবেদন বিবেচনা করে ঋণ সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিতে পারে। উক্ত আবেদন বিবেচনার সময় ব্যাংকের গৃহীত ঋণ কর্মপন্থার (Loan Policy) নির্দেশনা অবলম্বন করতে হয়। নির্দিষ্ট স্তরের ঊর্ধ্বে ঋণ আবেদন সমূহ পর্যালোচনা করে সুপারিশ সহ সিদ্ধান্তের জন্য পর্বদ সভায় প্রেরণ করে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতে পারে পাঁচ লক্ষ টাকার অধিক ও এক কোটি টাকার কম ঋণ আবেদন সমূহ ঋণ কমিটি পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারে কিন্তু উক্ত সুপারিশ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের পূর্বেই পরবর্তী পর্ষদ সভায় অনুমোদন লাভ করতে হয়। অপরপক্ষে এক কোটি টাকার বেশী ঋণ আবেদন পর্যালোচনা করে সুনির্দিষ্ট মন্তব্য সহ সিদ্ধান্তের জন্য ঋণ কমিটি পর্ষদ সভায় প্রেরণ করে থাকে।

৩. বিনিয়োগ কমিটি [ Investment Committee ]:

এই কমিটি গৃহীত বিনিয়োগ কর্মপন্থা (Investme Policy) নিরিখে বিনিয়োগ প্রস্তাব সমূহ বিবেচনা করে থাকে। বিনিয়োগ পত্রকোষ (Investment Portfolio) বিনিয়োগ পরিপকতার মেয়াদ, বিনিয়োগের পরিমাণ ইত্যাদি সম্পর্কে নির্দিষ্ট অংক পর্যন্ত এ কমিটি চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে বাস্তবায়নের জন্য প্রেরণ করতে পারে। ঋণ কমিটির মত এ কমিটিও নির্দিষ্ট অংকের উর্ধ্বে বিনিয়োগ প্রস্তাব সমূহ পর্যালোচনা করে সুনির্দিষ্ট মন্তব্য সহকারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য পরিচালনা পর্ষদের নিকট প্রেরণ করে থাকে।

৪. বেতন ও কর্মী বাহিনী সম্পর্ক কমিটি [ Salary and Employee Relation Committee ]:

বাজার অর্থনীতির বেসরকারী মালিকানাধীন ব্যাংক ও অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রতিযোগিতা প্রকট। তীব্র প্রতিযোগিতা উত্তরণের জন্য এরূপ প্রত্যেকটি প্রতিষ্ঠানই অধিকতর যোগ্য, দক্ষ ও অভিজ্ঞ উর্ধ্বতন কর্মকর্তা নিয়োগে তৎপর থাকে। অতএব এ কমিটি প্রতিযোগী প্রতিষ্ঠান সমূহের দ্বারা প্রদত্ত বেতন ভাতাদী নিজেদের ব্যাংকের সুবিধাদীর সংগে পর্যালোচনা করে আনুপাতিক হারে বৃদ্ধি সুপারিশ করে ঊর্ধ্বর্তন কর্মকর্তাদের নিজেদের ব্যাংকে আকৃষ্ট করে থাকে। এতদভিন্ন ব্যাংকের সাধারণ কর্মী বাহিনীর মধ্যে সুসম্পর্ক বজায় রাখার জন্য তাদের উদাপিত অভিযোগ ও দাবী পাওয়া পর্যালোচনা করে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ পরিচালনাপর্বদে প্রেরণ করে। ব্যাংক কর্মচারীদের সম্পর্ক উন্নততর করে কর্মকর্তা কর্মচারী আবর্তণ ন্যূনতম স্তরে রাখার জন্য এ কমিটি অবদান রাখে।

৫. পরীক্ষা ও নিরীক্ষা কমিটি [ Examining and Audit Committee ]:

পরীক্ষা কর্তৃপক্ষের রাষ্ট্রীয় নির্দেশনা ও বিধি বিধান মত কার্য সম্পাদন হচ্ছে কিনা তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখার জন্য এই কমিটি কাজ করে থাকে। ব্যাংকের কোন শাখা বা বিভাগের কার্যক্রম পরীক্ষা করে ত্রুটি বিচ্যুতি চিহ্নিত করা এ কমিটির দায়িত্ব ও কর্তব্য। কমিটির সদস্যগণ নিজেরা অথবা বাহিরে পেশাদার বিশেষজ্ঞ (CA & CPA) ব্যক্তিবর্গ কর্তৃক সময় সময় এপ পরীক্ষা করা হয়ে থাকে। যদিও এরূপ পরীক্ষা করা কেবল ব্যাংক নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষেরই কাজ কিন্তু ব্যাংক স্ব-উদ্দোগে উল্লেখিত কমিটির মাধ্যমে কার্যক্রম পরীক্ষা করে বলে প্রত্যেকটি বিভাগ বা শাখা তাদের আওতাভুক্ত কার্য সম্পাদনে সর্বদা অধিকতর যত্নবান সতর্ক থাকে।

এর ফলে ব্যাংক কর্মকর্তা কর্তৃক প্রতারণা, জালিয়াতী তথা ইচ্ছাকৃত ও অনিচ্ছাকৃত ভুল ত্রুটি অতিশয় কম সংগঠিত হয়ে থাকে। এর ফলে ব্যাংকের সামগ্রিক দক্ষতা ও কর্ম সাফল্য অনেকাংশে বেড়ে যায় এবং রাষ্ট্রীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা ও বিধান কম লংঘিত হয়ে থাকে। সাথে সাথে দেশে জনসমক্ষে ব্যাংকের সুনাম বৃদ্ধি পায়।

৬. ব্যবস্থাপনা মূল্যায়ন কমিটি [ Management Evaluation Committee ]:

এ কমিটি নিজে অথবা বাহিরের কোন ব্যবস্থাপনা কনসালটেন্সি ফার্ম (Management Consultancy firm) দ্বারা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি, কর্মী ব্যবস্থাপনা সম্পত্তি, ব্যবস্থাপনা ও তথ্য প্রবাহ, ব্যবস্থাপনাসহ ঋণ কর্মপন্থা ও বিনিয়োগ কর্মপন্থা মূল্যায়ন করে সময় সময় অধিকতর উন্নততর করার লক্ষ্যে সুপারিশ গ্রহণ করে বোর্ডের অনুমোদন সাপেক্ষে বাস্তবায়নের জন্য প্রেরণ করে থাকে।

৭. শুছি কমিটি [ Trust Committee ]:

ঋছি কমিটি হিসাব সমূহের রক্ষনাবেক্ষন পরীক্ষা করে এইরূপ হিসেবের তহবিল বিনিয়োগ ব্যবস্থা ও তা থেকে আয়ের অবস্থা পরীক্ষা করে দেখে। এই কমিটি বিশেষ করে ওহি তহবিল অধিকতর বেশী মুনাফা অর্জনে সক্ষম কিন্তু ঝুঁকি অপেক্ষাকৃত কম এরূপ বিনিয়োগের খাত চিহ্নিত করে বোর্ডের অনুমোদন সাপেক্ষে বাস্তবায়নের জন্য প্রেরণ করে থাকে।

৮. বাট্টা কমিটি [ Discount Committee ]:

বাটা কমিটি একটি বাণিজ্যিক ব্যাংকের ব্যস্ততম কমিটি। এ কমিটি উপস্থাপিত বিলের বাটার হার প্রদেয় ঋণের সুদের হার এবং চাহিদা ও তহবিল সরবরাহ ভিত্তিক বিভিন্ন খাতে ঋণ প্রবাহ বাড়ানো বা কমানোর জন্য যুক্তি সহকারে সিদ্ধান্ত নেয় যা বোর্ডের অনুমোদন সাপেক্ষে বাস্তবায়ন করা হয়ে থাকে।

৯. ব্যবসায় উন্নয়ন কমিটি [ Business Development Committee ]:

ব্যবসায় উন্নয়ন কমিটি দু’ধরণের হতে পারে। প্রথমতঃ ব্যাংকের নতুন নতুন উদ্ভাবনী সেবা বা প্রকল্প প্রনয়ণে পরীক্ষা নিরীক্ষা বা গবেষনা করা। দ্বিতীয়তঃ ব্যাংকের বিদ্যমান ও পরিকল্পিত সেবা সম্পর্কে গ্রাহকদের মধ্যে চাহিদা সৃষ্টি করা। চাহিদা সৃষ্টি মূলত একটি বিপনন কৌশল যার যথাযথ ও বহুল প্রচার সঠিক বিজ্ঞাপন মাধ্যম ও সঠিক বিজ্ঞাপন ভাষার উপর নির্ভর করে। সুতরাং প্রথমোক্ত এরূপ কমিটিতে নতুন নতুন ব্যাংক সেবা উদ্ভাবনে সক্ষম ব্যাংক সেবা বিশেষজ্ঞ থাকতে পারে। অপরপক্ষে দ্বিতীয় কমিটিতে বিজ্ঞাপন তথা গণসম্পর্ক বিশেষজ্ঞ থাকা আবশ্যক। কমিটির গঠন যাই হোকনা কেন এরুপ কমিটির সুপারিশ মালার যুক্তিযুত্ততা জ্ঞাপন করে বাস্তবায়নের পুর্বে পর্যদের অনুমতি নিতে হবে।

 

আরও পড়ুন:

ব্যাংকের সাংগঠনিক ব্যবস্থাপনা [ Organization Management of Bank]

 

 

“পরিচালকদের স্থায়ী কমিটি সমূহ [ Standing Committees of the Board of Directors ]”-এ 1-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন