প্রাথমিক বনাম মাধ্যমিক রিজার্ভ [ Primary Vs Secondary Reserve ]

প্রাথমিক বনাম মাধ্যমিক রিজার্ভঃ প্রাথমিক রিজার্ভ ও মাধ্যমিক রিজার্ভ উভয়েরই মূল উদ্দেশ্য উত্তম তারল্য ব্যবস্থাপনা। তৎসত্ত্বেও তারল্য ব্যবস্থাপনায় ব্যবহৃত ব্যাংকের এ দুটি হাতিয়ারের মধ্যে কিছু সাদৃশ্য ও কিছু বৈসাদৃশ্য রয়েছে। তবে কিছুটা সাদৃশ্য কেবল উদ্দেশ্যে যথাঃ উভয়প্রকার রিজার্ভই তারল্য ব্যবস্থাপনায় ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

প্রাথমিক বনাম মাধ্যমিক রিজার্ভ [ Primary Vs Secondary Reserve ]

প্রাথমিক বনাম মাধ্যমিক রিজার্ভ [ Primary Vs Secondary Reserve ]

এদের মধ্যে কয়েকটি বৈসাদৃশ্য রয়েছে যা নিম্নরূপ :

পার্থক্যের বিষয়প্রাথমিক রিজার্ভমাধ্যমিক রিজার্ভ
১. লক্ষ্য
Object
কেবল মাত্র তারল্যতারল্য ও কিছু মুনাফা
২.আকার
Forms
নগদ অর্থঋণপত্র ও বন্ড
৩. অবস্থান
Location
ক. ব্যাংকের কোষাগারে বা সিন্দুকে

খ. কেন্দ্রীয় ব্যাংক

গ. অন্য ব্যাংকে চলতি আমানত।

ক. ঋণপত্র বা বন্ড ইস্যুকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ
৪. তারল্যের ব্যাপ্তী
Extent of Liquidity
সম্পূর্ণ শতকরা ১০০ ভাগউচ্চ ব্যাপ্তি কিন্তু শতকরা ১০০ ভাগের কম
৫. মুনাফা অর্জনের হার
Rate of Yield
মুনাফা অর্জন ক্ষমতা নেইমুনাফা অর্জনক্ষম কিন্তু মুনাফা অর্জন হার কম।
৬. ধরণ
Types
মূলত দুধরণের (ক) বিধিবদ্ধ রিজার্ভ ও (খ) কার্যকরী রিজার্ভমূলত এরূপ কোন রিজার্ভের বিভাজন প্রয়োজন নহে।
৭. পরিমাণ
Quantity
প্রাথমিক রিজার্ভের পরিমাণ অপেক্ষাকৃত কমমাধ্যমিক রিজার্ভের পরিমাণ প্রাথমিক রিজার্ভের পরিমাণের তিন থেকে চারগুণ হয়ে থাকে।
৮. নিরাপত্তা রক্ষাকবচ
Line of defence
প্রথম স্তরের রক্ষাকবচদ্বিতীয় স্তরের রক্ষা কবচ
৯. তারল্য প্রস্তুতি
Liquidity Rediness
তাৎক্ষণিক তারল্য সুবিধাস্বল্পতম সময়ই তারল্য সময়।
১০. রূপান্তর প্রয়োজনীয়তা
Need for Shiftability
কোন প্রয়োজনই নেই ।প্রয়োজন আছে।
১১. ঝুঁকি স্তর
Level of Risk
নেই বললেই চলেঅতিশয় কম
১২. বাজারজাত করণের
Need for markentization
কোনই প্রয়োজন নেইপ্রয়োজন আছে কিন্তু কিছু বাজারের চাহিদা সব সময়ই তৈরি থাকে।

প্রাথমিক বনাম মাধ্যমিক রিজার্ভ [ Primary Vs Secondary Reserve ]

একটি ব্যাংকের নামে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে থাকা রিজার্ভ হিসাবের পরিবর্তনের উপাদান সমূহ [Factors Causing Change the Reserve Accounts Balance in the Central Bank ]

প্রতিটি বাণিজ্যিক ব্যাংককে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে বিধিবদ্ধ রিজার্ভ সংরক্ষণ করতে হয়। এরূপ রিজার্ভ লেনদেন হিসাবের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক প্রত্যেকটি বাণিজ্যিক ব্যাংকের নামে দৈনন্দিন আগমন নির্গমন লেনদেন লিপিবদ্ধ করে থাকে এবং দিনান্তে প্রতিদিনই এরূপ রিজার্ভ হিসাবের জের নির্ণয় করে নির্দিষ্ট ব্যাংককে অবহিত করা হয়ে থাকে।

এরূপ লেনদেনের কতকগুলো বাণিজ্যিক ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণাধীন আর কতকগুলো নিয়ন্ত্রণাধীন নহে। অর্থাৎ যে সমস্ত লেনদেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মাধ্যমেই সংগঠিত হয়ে থাকে সেই সকল লেনদেনের বেলায় সদস্য ব্যাংকের কিছুই করার থাকে না। যা হোক চিত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রক্ষিত সদস্য ব্যাংকের নামে রাখা রিজার্ভ হিসাবে এরূপ লেনদেনের প্রভাব দেখা যেতে পারে

প্রারম্ভিক আমানত জের

আন্তঃপ্রবাহ

অনিয়ন্ত্রণযোগ্য :

  • সংগৃহীত চেক সমূহ।
  • তাৎক্ষনিকভাবে প্রাপ্ত স্থগিত পাওনা

নিয়ন্ত্রণযোগ্য :

  • ক্ষণপত্র বিক্রয়লব্ধ অর্থ।
  • পুনঃক্রয়ের চুক্তিতে ঋণপত্র বিক্রয়।
  • ঋণপত্র বিক্রয় লক্ষ ধার।
  • আমার প্রক্রিয়ায় থাকা মুদ্রা।

বহিঃ প্রবাহ

অনিয়ন্ত্রণণযোগ্য :

  • আদায়ের জন্য চেক সমূহ ।
  • মেয়াদোত্তীর্ণ সিডি-র পাওনা পরিশোধ।
  • প্রাপ্ত ঋণ ফেরৎ।

নিয়ন্ত্রণযোগ্য :

  • ঋণপত্র ক্রয় ।
  • পুনঃক্রয় চুক্তি বাতিল ।
  • কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ধার পরিশোধ ।
  • পরিশোধ প্রক্রিয়ার থাকা মুদ্রা ।

আন্তঃপ্রবাহ ( +/- ) বহিঃ প্রবাহ = আমানত জেরের নীট পরিবর্তন = কেন্দ্রীয় ব্যাংকে দিনান্তে আমানত

প্রাথমিক বনাম মাধ্যমিক রিজার্ভ [ Primary Vs Secondary Reserve ]

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তরল সম্পদ সংরক্ষণের দৈনন্দিন বিবরণী [ Daily Statement of Statutory Liquidity Reserve [SLR]]

১৯৯১ সালের ব্যাংকিং আইনের ৩৩(১) ধারা মতে ব্যাংকের নিজস্ব সিন্ধুকে ও বাংলাদেশ ব্যাংকে রক্ষিত চলতি হিসাবে স্থিতি মিলিয়ে মোট আমানতের শতকরা ৫% সমসাময়িক নগদান আবশ্যকতা [SLR হিসেবে রাখতে হয়। এ ছাড়াও বাংলাদেশ ব্যাংকের একাউন্টে সোনালী ব্যাংকের নিকট রক্ষিত চলতি হিসাবের স্থিতিঃ আদায় পথে থাকা টিটিইন, স্বর্ণ ও দায়হীন অনুমোদিত সম্পত্তি নির্দেশন পত্র (বর্তমান বাজার দরের অধিক মূল্য নহে) একত্রে মোট আমানতের শতকরা ২০ ভাগ সহজে বিনিময় যোগ্য তরল সম্পদ (SLR) হিসেবে সংরক্ষণ আবশ্যক।

আরও পড়ুনঃ

মন্তব্য করুন