ব্যাংক তারল্য প্রকৃতি [ Nature of Bank Liquidity ]

ব্যাংক তারল্য প্রকৃতি [ Nature of Bank Liquidity ]ব্যাংকের তারল্য সাধারণত নগদান অর্থেই হয় এরূপ ভাবা স্বাভাবিক।

ব্যাংক তারল্য প্রকৃতি [ Nature of Bank Liquidity ]

ব্যাংক তারল্য প্রকৃতি [ Nature of Bank Liquidity ]

এছাড়াও তরল সম্পদ বলতে ব্যাংকের যে সমস্ত সম্পত্তি বিবেচিত তা নিম্নরূপ :

(ক) নগদান সম্পত্তি প্রয়োজনীয় তারল্যের সমান

অথবা,

(খ) নগদান সম্পত্তির ঘাটতি পূরণে সহজে রূপান্তরযোগ্য প্রায় নগদান সম্পত্তি ধারণ

অথবা

(গ) তারল্য প্রয়োজন পূরণে নগদান সম্পত্তির ঘাটতি হলে দায় সৃষ্টির মাধ্যমে।

উল্লেখিত বিকল্প সমূহ অনুধাবন করলে বোঝা যায় ব্যাংক যে কোন একটি অথবা একের অধিক তারল্যের উৎস ব্যবহার করতে পারে। ব্যাংক ভেদে অথবা পরিস্থিতি ভেদে একই ব্যাংক সময়ান্তরে এক বা একাধিক ভাবে তারল্য চাহিদার প্রতি গুরুত্ব দিতে পারে।

নগদানে প্রথম বিকল্প তারল্য প্রকৃতিতে প্রয়োজন মোতাবেক নগদ অর্থ হাতে রাখতে হবে। অভিজ্ঞতা ও উপাত্ত ভিত্তিক পূর্বাভাসের মাধ্যমে এরূপ নগদান সম্পত্তির পরিমাণ ঠিক রাখা হয়ে থাকে। কিন্তু এতে অনুপার্জনক্ষম সম্পত্তিতে ব্যাংকের বেশী পরিমাণ সম্পদ ধরে রাখতে হয়। দ্বিতীয় বিকল্পটি প্রায় নগদান সম্পত্তি অনুপার্জনশীল না হলেও স্বল্প উপার্জনশীল। অনুন্নত মুদ্রা বাজারে অথবা মুদ্রা বাজারে কম প্রভাবকারী ব্যাংকের এটি নির্ভরযোগ্য তারল্যের উৎসের বিকল্প। দ্বিতীয় বিকল্পটি উন্নত অর্থনীতিতে বেশী বেশী ব্যবহৃত হয়ে থাকে। দায় বিক্রয় করে এরূপ বাজার থেকে স্বল্প মেয়াদী অর্থ সংগ্রহ করা মৃত্যু বাজারে সুনাম আছে এমন ব্যাংক সমূহের জন্য দেয়।

ব্যাংক তারল্য প্রকৃতি [ Nature of Bank Liquidity ]

তারল্যের প্রকারভেদ [ Types of Liquidity ]

তারল্য সমস্যা বিশ্লেষকবৃন্দ ও ব্যাংক ব্যবস্থাপকগণ নানাভাবে নানা সৃষ্টিকোণ থেকে তারলাকে দেখে থাকে। দৃষ্টিকোণের ভিন্নতার কারণে তারল্যের প্রকারভেদ ভিন্নতর হতে পারে। তবে সাধারণত তারল্য চার প্রকারের হয়ে থাকে।

(১) তাৎক্ষণিক তারল্য Immediate Liquidity

(২) স্বল্প মেয়াদী Short-term Liquidity

(৩) দীর্ঘ মেয়াদী – Long term Liquidity

(৪) ঘটনা নির্ভর সম্ভাব্য তারল্য-Contingent Liquidity

এছাড়াও আরও দু’ ধরণের তারল্য চিহ্নিত করা হয়ে থাকে যথা :

(৫) মৌসুমী তারল্য Seasonal Liquidity

(৬) অর্থনৈতিক আবর্তন উদ্বৃত্ত তারলা Economic Cyclical Liquidity

উপরোক্ত তারল্যের প্রকারভেদ সমূহের প্রধান কার্যাবলী সম্পর্কে সংক্ষিপ্তাকারে পর্যায়ক্রমে বিশ্লেষণ করা হলো :

(১) তাৎক্ষণিক তারল্য-Immediate Liquidity :

ব্যাংকের আমানতকারীদের উপস্থাপিত চেক প্রদানসহ দৈনন্দিন প্রদেয় দায়সমূহ এ পর্যায়ের তারল্য প্রয়োজন বলে বিবেচিত।

(২) স্বল্প মেয়াদী তারল্য-Short Term. Liquidity :

দৈনন্দিন তারল্যের চেয়ে এরূপ তারল্য প্রয়োজনীয়তা মাসের গতির পরিক্রমায় ঘটে থাকে। গ্রাহক ভেদে ও ঋতুভেদে এরাপ তারল্যের প্রয়োজনে তারতম্য ঘটে থাকে। কৃষকের বপনের মৌসুম ব্যবসায়ীর আমদানী-রপ্তানী মৌসুম। ঈদ পূজা পার্বন ইত্যাদি এরূপ তারল্যের পরিমাণকে প্রভাবিত করে।

(৩) দীর্ঘ মেয়াদী তারল্য-Long Term Liquidity :

দীর্ঘ মেয়াদী তারল্য স্বভাবত নির্দিষ্ট সময়ে হয়ে থাকে। সাধারণত কয়েক মাস বা কয়েক বছর আগেও এরূপ তারল্যের প্রয়োজনীয়তা পূর্বাভাস দেওয়া সম্ভব। স্থায়ী সম্পত্তি অবসায়নে প্রতিস্থাপনের প্রয়োজনে তারল্য, ঋণপত্র অবসায়নের জন্য প্রয়োজনীয় তারল্য ও অন্যান্য মেয়াদী ঋণপত্র তথা অগ্রাধিকারী শেয়ারের অংশত অবসায়ন এবং পরিকল্পিত ভাবে নতুন সম্পত্তি আহরণ ও উন্নত প্রযুক্তিগত সম্পত্তি প্রয়োগ ইত্যাদির জন্য দীর্ঘমেয়াদী তারল্য সম্পদের প্রয়োজন হতে পারে।

ব্যাংক তারল্য প্রকৃতি [ Nature of Bank Liquidity ]

(৪) ঘটনা নির্ভর সম্ভাব্য তারল্য-Contingent Liquidity :

অস্বাভাবিক ঘটনা ঘটার ফলে উদ্ভুত নগদান চাহিদা এরূপ তারল্যের প্রয়োজনীয়তার মূল কারণ। এই অস্বাভাবিক ঘটনার পূর্বাভাস পাওয়া কঠিন কিন্তু অসম্ভব নয়। তবে ঘটনা নির্ভর সম্ভাব্য তারল্যের পরিমাণ নিখুঁত ভাবে পূর্বাভাস করা দুষ্কর। এ ধরণের তারল্য সাধারণত কোন মামলা মোকদ্দমায় হেরে যাওয়ার কারণে ক্ষতিপূরণ, বড় আমানতকারীরসমূহ অর্থ স্থানান্তর, অস্বাভাবিক ঋণ চাহিদা ও আর্থিক দৈন্যতার গুজবের কারণে বড় আকারের আমানত উত্তোলন চাহিদা ইত্যাদি ।

বড় ধরণের ব্যাংক ডাকাতি, প্রতারণা, জালিয়াতি, অগ্নিসংযোগ ও অন্যবিধ দুর্ঘটনার কারণে উদ্ভুত পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ চাহিদা ঘটার কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ চাহিদা কে ঘটনা নির্ভর সম্ভাব্য তারল্য বলে।

উপরিল্লিখিত প্রকারের তারল্য ব্যতিরেকে ও নিম্নে একটির তারল্য সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা গেল :

(৫) অর্থনৈতিক আবর্তন উদ্ভূত তারল্য Economic Cyclical Liquidity :

চাঙ্গা ও মন্দা অর্থনৈতিক অবস্থা ভেদে ব্যাংকের আমানত সরবরাহ ও ঋণ চাহিদা হ্রাস বৃদ্ধি হওয়া খুবই স্বাভাবিক। এরূপ হ্রাস বৃদ্ধিতে তারল্য সরবরাহের ও হ্রাস বৃদ্ধি ঘটতে পারে। এইরূপ চাহিদা নিরূপন করা খুবই কঠিন ব্যাপার। সাধারণত জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রভাব সৃষ্টিকারী ঘটনা এরূপ অর্থনৈতিক উত্থান পতনের জন্য দায়ী। যেমন : রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা, যুদ্ধ-বিগ্রহ, ব্যাংকিং কর্মকান্ডে স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের প্রবল চাপ এরূপ অর্থনৈতিক আবর্তন উদ্ভুত তারল্য অবস্থার সৃষ্টি করে। এরূপ নির্ধারক যাই হোক না কেন, সুদের হারের তারতম্যের ফলে বিভিন্ন স্তরে সুদের হারে তারল্যের বিভিন্নতা হওয়া স্বাভাবিক। নিম্নের চিত্র থেকে বিষয়টি পরিষ্কার হবে।

উপরোক্ত চিত্র পর্যবেক্ষণ করলে বুঝা যায় অর্থনৈতিক মন্দা ও সংকোচনশীল অবস্থায় মুদ্রা সরবরাহ বাড়বে সুদের হার কমবে, তারল্য চাহিদা বৃদ্ধি পায় এবং ব্যাংক আমানত সংকুচিত হয়। অপরদিকে অর্থনৈতিক চাঙ্গা সম্প্রসারণশীল তথা গতিশীল অবস্থায় মুদ্রা সরবরাহ কমবে। সুদের হার বাড়বে, তারল্য চাহিদা হ্রাস পায় এবং ব্যাংক আমানত বৃদ্ধি পায়।

আরও পড়ুনঃ

মন্তব্য করুন